ই পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়মঃ নিজেই পাসপোর্ট ভুল সংশোধন করুন

পাসপোর্টের ভুল সংশোধন করার প্রসেস টি অনেকের কাছে ঝামেলার মনে হতে পারে, আবার নতুন নিয়ম এবং প্রজ্ঞাপনের কারণে অনেকে এ নিয়ে অনেকটাই বিভ্রান্ততে রয়েছেন। 

গত কিছুদিন আগে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের থেকে নতুন নিয়মে পাসপোর্ট সংশোধনের নোটিশ জারী করেছে। তাই আপনি যদি নতুন পাসপোর্টের আবেদন করেন, অথবা ই পাসপোর্ট সংশোধন করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে এই সকল বিষয় গুলো আগে থেকেই জানতে হবে। 

তাই ই পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম সহ, সর্বশেষ প্রজ্ঞাপন ও যাবতীয় বিষয় গুলো নিয়ে আমাদের এই টিউটোরিয়াল টি সাজানো হয়েছে, আমরা এইসকল সব বিষয় নিয়ে বিস্তারিত ভাবে নিচে আলোচনা করেছি।

ই পাসপোর্ট সংশোধনের জন্য কি কি লাগে?

পাসপোর্ট সংশোধনের ক্ষেএে আপনার একাধিক ডকুমেন্টের প্রয়োজন হতে পারে, এছাড়াও তথ্য গুলো সঠিক রয়েছে কিনা তা যাচাইয়ের জন্য গোয়েন্দা সংস্থা মাধ্যমে তথ্য যাচাই করা হতে পারে। তাই তথ্য গুলো যথাযথ রয়েছে কিনা তা অবশ্যই প্রথমেই যাচাই করে নিবেন। নিচে যে সকল তথ্য প্রয়োজন হবে সেগুলো উল্লেখ করা হলোঃ

  • জাতীয় পরিচয় পত্র (যদি জাতীয় পরিচয় পত্র না থাকে তাহলে শিক্ষা যোগ্যতা সনদ।)
  • যাদের উপরোক্ত দুইটি ডকুমেন্টের একটিও নেই, তাদের ক্ষেএে জন্ম নিবন্ধন।
  • পুরাতন পাসপোর্ট এবং পাসপোর্টের কপি
  • অঙ্গিকারনামা
  • লিখিত আবেদন
  • বিদেশে দূতাবাসে আবেদন করা হলে, সেক্ষেত্রে Job ID Card/Driving Licence/ Permanent Resident Card/Student ID Card 

পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম

পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম

MRP কিংবা E Passport যেটিই আপনি সংশোধন করতে চান না কেন, প্রথমে আপনাকে সেটির জন্য অনলাইনে ই পাসপোর্ট রিনিউ জন্য আবেদন করতে হবে। পাসপোর্ট আবেদনের ক্ষেএে অবশ্যই আপনাকে কিছু জিনিসের দিকে সতর্ক থাকতে হবে, যেমন আপনি অনলাইন ফরম পূরনের সময়ে অবশ্যই আপনার নাম, ঠিকানা সহ সকল তথ্য গুলো জাতীয় পরিচয় পত্র অনুযায়ী হুবুহু বসাতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে যেন কোন কিছু ভুল না হয়। 

যেহেতু এটি পাসপোর্ট সংশোধন এর জন্য আবেদন করা হচ্ছে তাই আপনাকে ID Documents অপশন থেকে পুরাতন পাসপোর্টের তথ্য দিন এবং অবেদন টি submit করুন।

পাসপোর্ট সংশোধনের জন্য অবশ্যই আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের তথ্য নির্ভুল হতে হবে এরপরে নিচের স্টেপস গুলো অনুসরণ করতে হবেঃ

  • অনলাইনে আবেদন করুন
  • সঠিক তথ্যে সাপেক্ষে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র প্রয়োজন হবে।
  • পাসপোর্ট সংশোধনের জন্য লিখিত আবেদন করতে হবে।
  • চালানের মাধ্যমে পাসপোর্টের ফি পরিশোধ করতে হবে।
  • অঙ্গীকার নামা তৈরি করুন, এক্ষেত্রে অবশ্যই পাসপোর্ট অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটের প্রদর্শিত নমুনা অনুযায়ী অঙ্গীকার নামা প্রস্তুত করতে হবে। এখানে ক্লিক করে পাসপোর্ট সংশোধনের অঙ্গীকার মামা ডাউনলোড করুন।
  • সকল কাগজপত্র সঠিকভাবে প্রস্তুত করে জমা দিন।

পাসপোর্টে জন্ম তারিখ সংশোধন

অনেকে রয়েছেন যাদের পাসপোর্টের জন্ম তারিখটি ভুল হয়ে থাকে। এক্ষেএে পাসপোর্টের জন্ম তারিখ সংশোধনের জন্য অবশ্যই আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র অনুসারে জন্ম তারিখটি হতে হবে।

যদের জাতীয় পরিচয় পত্র বা NID card নেই, তাদের ক্ষেএে জেএসসি/ এসএসসি/ এইচএসসি/ কারিগরি/ সমমান/ দাখিল/ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের যেকোন একটি সনদ পত্র দেখাতে হবে। আর যারা অপ্রাপ্ত বয়স্ক বা উপরের কোন ডকুমেন্টস নেই তাদের ক্ষেএে অবশ্যই জন্ম নিবন্ধন সাথে রাখতে হবে।

পাসপোর্টের নাম সংশোধন 

আপনার পাসপোর্টে যদি আপনার, আপনার পিতার বা মাতার যার নামই ভুল হোক না কেন সেটি সংশোধন করতে চাইলে সেটিও পারবেন। এক্ষেত্রে যার নাম সংশোধন করবেন তার জাতীয় পরিচয় পত্র অথবা শিক্ষাগত যোগ্যতা সনদপত্র রাখতে হবে, এক্ষেত্রে যাদের উপরোক্ত কোনটি নেই তাদের জন্ম নিবন্ধন যেকোন একটি সাথে থাকতে হবে।

পাসপোর্ট সংশোধন করতে কত টাকা লাগে?

আমাদের মধ্যে অনেকের ভুল ধারণা রয়েছে, যে অনেকে মনে করেন পাসপোর্ট সংশোধনের জন্য আলাদা চার্জ রয়েছে। আসলে ব্যাপারটি তা নয়, পাসপোর্ট সংশোধনের জন্য আলাদা কোন চার্জ বা খরচ নেই, আপনি নতুন পাসপোর্টের জন্য অ্যাপ্লাই করলে যে খরচ টি প্রদান করতে হয়, ঠিক একই খরচ টি প্রদান করতে হবে। এক্ষেত্রে পাসপোর্ট সংশোধনের জন্য সর্বনিম্ন ৪০২৫ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ১০৩৫০ টাকা পর্যন্ত পাসপোর্ট ফি প্রদান করতে হয়ে থাকে।

আরও পড়ুনঃ

Sharing is Caring: